অনেকের টাকা থাকার পরেও অনেকে ম্যাকবুক ব্যবহার না করে ডেস্কটপ ব্যবহার করেন কেন?

ম্যাকবুক এবং উইন্ডোজ  দুটোর সাথেই বহুদিনের  দুইরকম সম্পর্কই জড়িয়ে আছে। তাই আমার এই উত্তরটি নীচের সবগুলি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে দিবো।



  •  ম্যাক ভালো নাকি উইন্ডোজ ভালো ?
  • মধ্যবিত্ত বাঙালি ম্যাকবুক কেনো কেনে?
  • ম্যাক কেনা কি টাকার অপচয় ?
  • তাহলে সবাই কেনো ম্যাকবুক না কিনে উইন্ডোজ কেনা বেশি পছন্দ করে ?
  • ম্যাক এর সুবিধা অসুবিধাগুলো কি কি ?
  • উইন্ডোজ এর সুবিধা অসুবিধাগুলো কি কি ?
  • আমার এক লক্ষ টাকা বাজেট হলে ম্যাকবুক নেওয়া ঠিক  নাকি উইন্ডোজ ?
  • বিদেশে ম্যাক এত জনপ্রিয় কেনো ?
  • এমন কি আছে, যার জন্য ম্যাকবুকের এর দাম এত বেশি হয় ?

শা করি বুঝতেই পারছেন খুবই বড়ো হতে চলেছে উত্তরটি। তাই সময় হাতে নিয়ে উত্তরটি পড়াই বাঞ্ছনীয়



প্রথমেই বলে রাখি, ম্যাক বা ম্যাকিন্টোস এবং উইন্ডোজ, দুটোই হলো কম্পিউটারের জন্য ব্যবহৃত পৃথিবীর সব চাইতে জনপ্রিয় দুটো অপারেটিং সিস্টেম (যার সাথে কম্পিউটার আর ব্যবহারকারীর মধ্যে সংযোগ স্থাপিত হয়), বা সহজ কথায় কম্পিউটারের প্রাণ। প্রাণ ছাড়া মানুষ যেমন নিথর; অপারেটিং সিস্টেম ছাড়াও কম্পিউটার হলো একটা অকাজের ঢেঁকি (যদিও ঢেঁকি খুব কাজের, অন্ততঃ নগ্ন কম্পিউটারের [ Naked PC ] তুলনায়)।


এবার শুরু করা যাক আসল উত্তর। ম্যাক এর কথায় আসা যাক প্রথমে। 

[নীচে MacOS ব্যবহারকারীর ম্যাপ ]

দেখতেই পাচ্ছেন যেসব দেশে আইওএস (আইফোনে ব্যবহৃত অপারেটিং সিস্টেম) ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেশি, সেই সব দেশে ম্যাক ব্যবহারকারীর সংখ্যাও বেশি। এর এক ও অদ্বিতীয় কারণ হলো ইকো সিস্টেম। আপনাদের মনে এবার প্রশ্ন জাগতেই পারে, 

 তবে বলি শুনুন, এই ইকো সিস্টেম, পরিবেশ এর ইকো সিস্টেম না। এটা মানে হলো, বিভিন্ন যন্ত্রাদির (Gadget) মধ্যে সমন্বয় সাধন (synchronization)। যেমন ধরুন, আপনার আইফোন চার্জে দেওয়া আছে, আপনি আপনার ম্যাকবুকে কোনো কাজ করছেন। এমন সময় হঠাৎ কোনো ফোন আসলো। আপনি তখন না উঠে ম্যাকবুক থেকেই ফোন ধরতে পারবেন, বা ধরুন মেসেজ পাঠানো বা আমি-মেঘ (iCloud) এর সৌজন্যে আপনার আইফোন বা আইপ্যাড এর মিডিয়া, ফোন ছাড়াই আপনার ম্যাকবুকে দেখতে বা নিতে পারবেন। অর্থাৎ সোজা ভাষায়, আপনার যদি আপেল নির্মিত সব যন্ত্রাদি থাকে, তবে ম্যাকবুক দিয়ে আপনি এক সাথে সব ব্যবহার করার অনাবিল আনন্দ অনুভব করতে পারবেন। সেই কারণে, যেসব দেশে (প্রধানত পশ্চিমের দেশগুলো) আইওএস ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেশি, সেসব দেশে ম্যাক খুবই জনপ্রিয়

এবার বলা যাক মধ্যবিত্ত বাঙালি ম্যাকবুক কেনে কেনো?

ঠোঁটকাটার মত বলছি বলে আগেই ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি, যেসকল মধ্যবিত্ত বাঙালি ম্যাকবুক ব্যবহার করে, তাদের শতকরা ৮০ ভাগই কেনে দেখানোর জন্য, ব্যবহার করার জন্য নয়। সত্যি কথা বলতে গেলে, আমার মতে ম্যাকবুক কেনা হলো -

"হাতি পোষা।"

সবাইকে বলতে পারবেন আমার হাতি (ম্যাকবুক) আছে, কিন্তু হাতি পুষতেও মাসে মাসে (খাওয়ানো বাবদ) আপনার গ্যাঁটের কড়ি বেশ ভালো রকমই ধসবে।


[ হাতি ও তার অবলা মাহুত ]

এবার আসি ম্যাকবুক কেনার দ্বিতীয় কারণ: ওজন ও বহণযোগ্যতা (Portability)।

আজ থেকে দশবছর আগে ম্যাকবুক বাতাসের (MacBook Air) পুণ্য আবির্ভাবের সময়, উচ্চমানের উইন্ডোজ ল্যাপটপগুলো, ওজনের দিক দিয়ে থান ইঁট কে, রীতিমতো টক্কর দিত। তাই সেইযুগে মানুষ, বহন করতে সুবিধা হয় বলে, ম্যাকবুকের দিকে ঝুঁকে পড়েছিল।

ম্যাক অপারেটিং সিস্টেমে আবার ফিরে আসা যাক। ম্যাক হলো ইউনিক্স (UNIX) পরিবারের একজন সদস্য। তাই এর RAM Management খুব ভালো। অপ্রয়োজনীয় জিনিস পেছনে চালিয়ে, কম্পিউটার ধীরে করে দেয় না।

চতুর্থত, ওই তেপান্তরের মাঠের মত ট্র্যাক প্যাড আর তার সঙ্গে ইঙ্গিত পরিচালন (Gesture Control)। সত্যি বলতে কি, ম্যাক ছেড়ে উইন্ডোজ ওই জন্য ব্যবহার করতে মন চায় না। বাঘকে রক্তের স্বাদ দিলে বাঘ আর দুধ কেনো খাবে বলুন!

পঞ্চমত, যেটা না বললে স্টিভ দাদু পাপ দেবে, সেটা হলো ব্যাটারি। পেছনে ভারী কিছু চলে না বলে ম্যাক অপারেটিং সিস্টেম খুব হালকা । তাই অনায়াসেই একবার পুরো চার্জ করে ১০-১২ ঘণ্টা নিশ্চিন্তে চালিয়ে দেওয়া যায়।

পরিশেষে, আরও একটা জিনিস বলা যায়। ম্যাকে ভাইরাস আক্রমণ উইন্ডোজ এর তুলনায় অনেক কম। তাই ম্যাক কে আপাতদৃষ্টিতে সুরক্ষিত বলা চলে।

এই এত কিছু সুবিধা আছে বলে, ম্যাক দিয়ে সফটওয়ার ডেভেলপিং আর ব্যবসার কাজে (সুরক্ষিত আর নিয়ে যেতে সুবিধা হয় বলে) ম্যাক বহুল ব্যবহৃত হয়।

এবার আসি ম্যাক ছেড়ে সবাই উইন্ডোজ কেনে কেনো। তার আগে আমি আমার বর্তমান উইন্ডোজ ল্যাপটপটির একটু বর্ণনা দিয়ে দিই।

এবার আসা যাক দামের কথায়। উপরোক্ত ল্যাপটপ (এই যা, কি বলছি আমি, দাদু শাপ দেবে ) থুড়ি MacBook টির দাম ১,০২,০০০ টাকা।

অর্থাৎ, আমি প্রায় দ্বিগুণ দাম দেবো, অথচ সব কম কম করে জিনিস নেবো। তা হয় নাকি বাপু ?

দাম তো হলো, এবার আসি সাজুগুজু তে।

উইন্ডোজ ল্যাপটপ কেনার দিন আমার সাজুগুজু করা ডেস্কটপ:


ম্যাক এর কথা না হয় এই ব্যাপারে বাদই দিলাম। এক ডেস্কটপ দেখতে দেখতে চোখ পচে গেছে। সাজুগুজু ( Customisation ) যতদিন পর্যন্ত না আসছে ম্যাকে, তত দিন আমি আর ম্যাক নৈব নৈব চ।

তৃতীয় হলো উন্নীতকরণ ( Upgrade )। উইন্ডোজ ল্যাপটপ RAM এবং SSD উন্নীতকরণ সমর্থন করে। ম্যাক, একটা সীমা অবধি (১৬ জিবি) RAM উন্নীতকরণ সমর্থন করলেও, এসএসডি আপগ্রেড সমর্থন করে না।

চতুর্থ হলো, গেম খেলা। যদিও আমি কম্পিউটারে গেম খেলি না বললেই চলে, তাও, এটা বলতে পারি, ম্যাক আর গেমের মধ্যে আদায় কাচকলা য় সম্পর্কের কথা কারো অজানা নয়।

পঞ্চমত, ভারত বা বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশগুলোতে উইন্ডোজ যত না ব্যবহৃত, ম্যাক তত পরিচিতও না। তাই পরিচিত পরিবেশে কাজ করতে বেশিরভাগ মানুষ উইন্ডোজ কেই বেছে নেয়।

পরিশেষে একটা কথাই বলবো। যদি আইফোন বা আইপ্যাড না থাকে, তবে দয়া করে টাকা অপচয় করে ম্যাক কিনবেন না। হালকা ল্যাপটপ পছন্দ হলে HP Envy বা Dell XPS আছে। এমনকি, স্পর্শকাতর ল্যাপটপও উইন্ডোজে পাবেন। ছেলে বা মেয়ে পড়াশুনার অজুহাতে চাইলে অযথা বেশি দাম দিয়ে আপেল এর ল্যাপটপ কিনে দেবেন না।হুজুগে পরে বা পশ্চিমী কায়দা অনুসরণ করতে গিয়ে অযথা টাকা খরচ না করে, সঠিক যায়গায়  সে টাকা খরচ করাই হলো বুদ্ধিমানের কাজ।

Post a Comment

0 Comments