দুধ ঠান্ডা না গরম কোনটা বেশি উপকারী??

দুধ ঠান্ডা না গরম কোনটা বেশি উপকারী??

দর্শ ভালো খাবারের তালিকায় প্রথম দিকেই থাকে দুধের নাম। ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ডি, পটাসিয়ামসহ আরো অনেক কিছুর ভালো উৎসই দুধ। পুষ্টিকর এ খাবারটি একেকজন একেকভাবে খেয়ে থাকে। কেউ গরম দুধ খেতে পছন্দ করেন, আবার কেউ ঠাণ্ডা দুধ পছন্দ করেন।

কিন্তু ঠাণ্ডা এবং গরম দুধের মধ্যে তাহলে তফাত কোথায়? সত্যিই কি ঠাণ্ডা বা গরম দুধের মধ্যে স্বাস্থ্যকর উপাদানে কোনো পার্থক্য রয়েছে? সেই খবর মিলল এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে।

দুধ ঠাণ্ডাই হোক আর গরমই হোক- তাতে এর পুষ্টিমানের কোনো পরিবর্তন হয় না।
ম্যাক্রোবায়োটিক পুষ্টিবিদ শিল্পা অরোরা বলেন, “গরম বা ঠাণ্ডা দুধ ভালো না খারাপ, তা নির্ভর করে আবহাওয়া ও কখন খাওয়া হচ্ছে সে সময়ের ওপর।

আবহাওয়ার ওপর নির্ভর করেই দুধ খাওযা উচিত বলে মনে করেন শ্রী বালাজি অ্যাকশন মেডিকেল ইনস্টিটিউটের প্রধান পুষ্টিবিদ প্রিয়া ভার্মাও।
তার মতে, ভুল সময়ে ভুলভাবে দুধ খেলে ঠাণ্ডা লাগাসহ আরো কিছু শারীরিক সমস্যা হতে পারে।

গ্রীষ্মকালে দিনের বেলা ঠাণ্ডা দুধ খাওয়া উপকারী কারণ এতে শরীর শীতল হয়। অন্যদিকে শীতকালে ঠাণ্ডা দুধ না খেয়ে বরং হালকা হলুদ মেশানো গরম দুধ খাওয়া উচিত। এটা শরীরকে উষ্ণ রাখে।

গরম দুধের উপকারিতা:
গরম দুধ খাওয়ার সবচেয়ে বড় উপকারিতা হল এটা সহজেই হজম হয় এবং ডায়রিয়া ও পেটফাঁপার মতো সমস্যা প্রতিরোধ করে। গরম দুধে ট্রিপটোফ্যান নামক এক ধরনের অ্যামিনো এসিড থাকায় ভালো ঘুমও হয়।

ঠাণ্ডা দুধের উপকারিতা:
ঠাণ্ডা দুধেরও রয়েছে বেশ কিছু উপকারিতা। এতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকে, যা এসিড সৃষ্টি হতে দেয় না এবং শরীরে সৃষ্ট হওয়া অতিরিক্ত এসিড শুষে নেয়। এতে থাকা ইলেকট্রোলাইটস পানিশূন্যতা প্রতিরোধ করে। তবে হজমে সমস্যা সৃষ্টি করার সম্ভাবনা থাকায় ঘুমের আগে এটা না খাওয়াই ভালো।

Post a Comment

0 Comments